ঢাকা ০৫:১৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দেলদুয়ারে বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ উঠেছে

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৬:৩৪:৪১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ মে ২০২৪ ৩০ বার পড়া হয়েছে

সোনালী বাংলাদেশ নিউজ ডেস্ক: টাঙ্গাইলে দেলদুয়ারের পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার (১৫ মে) দুপুরে জেলার দেলদুয়ার উপজেলায় পুটিয়াজানী বাজারে দুপুরে এঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন বাজার শাখার সাধারন সম্পাদক ও সাবেক ইউপি সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মো.সাইদুর রহমান।
তিনি জানান,এটা একটা দুঃখজনক ঘটনা যে এই বাজারে ভাঙ্গচুর করেছে। ভাঙ্গচুরের সময় দুপুর ছিল। এসময় বাজারের লোকজন কম থাকে তা না হলে এঘটনা ঘটাতে পারতো না। তিনি আরো জানান এই দোকানটি বয়স্ক সুফিয়া বেগমকে তার বাবা জমি ক্রয় করে তার মেয়েকে দিয়েছে। সেই দোকানের সামনে দিয়ে সরকারী রাস্তা করা হচ্ছে সেখান থেকে ভুত্তির্কীবাবদ সরকারের নিকট কিছু টাকা পেয়েছে। সেই টাকার লোভে পড়ে সুফিয়া বেগমের দেবর  মো.নজরুল ইসলাম তার লোকবল নিয়ে এঘটনা ঘটায়।
বীর মুক্তিযোদ্ধা আজহার আলী জানান সুফিয়া বেগমের দেবর নানা সময়ে নানা ধরনের অপকর্ম করাতে তাকে আমাদের সমাজ থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। তাতেও তিনি ক্ষান্ত হননি। তার ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।
সুফিয়া বেগম জানান,আমার বাবা অনেক বছর আগে আমাকে এই জায়গা ক্রয় করে দেন। সেখানে দোকান করে চলি। এক পর্যায়ে আমার দোকানের সামনে দিয়ে টাঙ্গাইল টু মানিকগঞ্জ রাস্তা হচ্ছে। সেই রাস্তায় একটু জায়গা পড়ে। সেখান থেকে কিছু টাকা পাই। সেই টাকা থেকে ২ লক্ষ টাকা চান আমার দেবর নজরুল ইসলাম। টাকা না দেওয়া আমার দোকানে হামলা করে। এদিকে নতুন করে দোকান পিছিয়ে তুলতে গেলে সেখানে  দেবর মো.নজরুল ইসলাম দুপুরে তার দল নিয়ে আমার দোকানের টিনের ঘর ভাং্গে। এব্যাপারে অভিযোগ করেছি থানায়।
সুফিয়া বেগমের ছেলে সেলিম মিয়া বলেন শ্রক্রবার সকালে থানায় গিয়ে অভিযোগ দিয়ে এসেছি। এরপরও আমরা কোর্টে মামলা দায়ের করবো।
এই ভাঙচুরের ঘটনায় জড়িত  মো.নজরুল ইসলামের সাথে  বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
জানা যায় দেলদুয়ার উপজেলায় ফাজিলহাটি মৌজায় পুটিয়াজানী গ্রামে ৪০৬৯ ও ৪০৭০ দাগ নাম্বারে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে টাঙ্গাইর পি-১৫০/২০২৪ নং মোকদ্দমা ভুক্ত তফসিল ভুমিতে গত ১৫ মে তারিখে দুপুরে সরেজমিনে সার্ভেয়ার করার কথা থাকলে সুফয়া বেগমের দেবর মো.নজরুল ইসলাম সময় চেয়ে আবেদন করেন।।
এবিষয় টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার থানার অফিসার ইনর্চাজ প্রদ্যুৎ সরকার বলেন,অভিযোগ পেলে আইনুগত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে। কোন সুযোগ নেই ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ভাঙচুর করে সে পালিয়ে বেড়াবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

দেলদুয়ারে বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ উঠেছে

আপডেট সময় : ০৬:৩৪:৪১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ মে ২০২৪

সোনালী বাংলাদেশ নিউজ ডেস্ক: টাঙ্গাইলে দেলদুয়ারের পুটিয়াজানী বাজারে দোকান ঘর ভাঙ্গচুরের অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার (১৫ মে) দুপুরে জেলার দেলদুয়ার উপজেলায় পুটিয়াজানী বাজারে দুপুরে এঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন বাজার শাখার সাধারন সম্পাদক ও সাবেক ইউপি সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মো.সাইদুর রহমান।
তিনি জানান,এটা একটা দুঃখজনক ঘটনা যে এই বাজারে ভাঙ্গচুর করেছে। ভাঙ্গচুরের সময় দুপুর ছিল। এসময় বাজারের লোকজন কম থাকে তা না হলে এঘটনা ঘটাতে পারতো না। তিনি আরো জানান এই দোকানটি বয়স্ক সুফিয়া বেগমকে তার বাবা জমি ক্রয় করে তার মেয়েকে দিয়েছে। সেই দোকানের সামনে দিয়ে সরকারী রাস্তা করা হচ্ছে সেখান থেকে ভুত্তির্কীবাবদ সরকারের নিকট কিছু টাকা পেয়েছে। সেই টাকার লোভে পড়ে সুফিয়া বেগমের দেবর  মো.নজরুল ইসলাম তার লোকবল নিয়ে এঘটনা ঘটায়।
বীর মুক্তিযোদ্ধা আজহার আলী জানান সুফিয়া বেগমের দেবর নানা সময়ে নানা ধরনের অপকর্ম করাতে তাকে আমাদের সমাজ থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। তাতেও তিনি ক্ষান্ত হননি। তার ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।
সুফিয়া বেগম জানান,আমার বাবা অনেক বছর আগে আমাকে এই জায়গা ক্রয় করে দেন। সেখানে দোকান করে চলি। এক পর্যায়ে আমার দোকানের সামনে দিয়ে টাঙ্গাইল টু মানিকগঞ্জ রাস্তা হচ্ছে। সেই রাস্তায় একটু জায়গা পড়ে। সেখান থেকে কিছু টাকা পাই। সেই টাকা থেকে ২ লক্ষ টাকা চান আমার দেবর নজরুল ইসলাম। টাকা না দেওয়া আমার দোকানে হামলা করে। এদিকে নতুন করে দোকান পিছিয়ে তুলতে গেলে সেখানে  দেবর মো.নজরুল ইসলাম দুপুরে তার দল নিয়ে আমার দোকানের টিনের ঘর ভাং্গে। এব্যাপারে অভিযোগ করেছি থানায়।
সুফিয়া বেগমের ছেলে সেলিম মিয়া বলেন শ্রক্রবার সকালে থানায় গিয়ে অভিযোগ দিয়ে এসেছি। এরপরও আমরা কোর্টে মামলা দায়ের করবো।
এই ভাঙচুরের ঘটনায় জড়িত  মো.নজরুল ইসলামের সাথে  বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
জানা যায় দেলদুয়ার উপজেলায় ফাজিলহাটি মৌজায় পুটিয়াজানী গ্রামে ৪০৬৯ ও ৪০৭০ দাগ নাম্বারে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে টাঙ্গাইর পি-১৫০/২০২৪ নং মোকদ্দমা ভুক্ত তফসিল ভুমিতে গত ১৫ মে তারিখে দুপুরে সরেজমিনে সার্ভেয়ার করার কথা থাকলে সুফয়া বেগমের দেবর মো.নজরুল ইসলাম সময় চেয়ে আবেদন করেন।।
এবিষয় টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার থানার অফিসার ইনর্চাজ প্রদ্যুৎ সরকার বলেন,অভিযোগ পেলে আইনুগত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে। কোন সুযোগ নেই ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ভাঙচুর করে সে পালিয়ে বেড়াবে।