ঢাকা ০৪:০৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নাগরপুরে রমজানে বাজারে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধগতি,ক্রেতারা দিশেহারা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৮:০৫:১৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০২৪ ৪৭ বার পড়া হয়েছে
 আজিজুল হক বাবু নাগরপুর প্রতিনিধিঃ  রমজান মাস উপলক্ষে নাগরপুর উপজেলার  বাজারগুলিতে নিত্য প্রয়োজনীয় সকল ভোগ্য পন্যের দাম ব্যাপক পরিমানে বৃদ্ধি পেয়েছে।এতে করে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়েছে।   সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায় যে, রমজান মাসে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম স্বাভাবিকের তুলনায় কয়েকগুন বৃদ্ধি পেয়েছে। স্হানীয় ব্যবসায়ী হেলাল জানান,আজ বাজারে বেগুন কেজি ৭০ টাকা, আলু ২০ টাকা,পিয়াজ ৫০ টাকা,পটল ৫০ টাকা,লেবু হালি প্রতি ৩০ টাকা,ছোলা ৬০-৮০ টাকা,খেসারি ডাল ৬০ টাকা,খেজুর মান ভেদে ১০০-৯০০ টাকা,মালটা ১৬০ টাকা, আপেল ১৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে ।এছাড়া বিভিন্ন ধরনের মাছের দাম আগের তুলনায় কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে।গরুর মাংস ৪৫০ টাকা ,ব্রয়লার ১৩০-২০০ টাকা,খাসির মাংস ৭০০ টাকা দরে ‍বিক্রি হচ্ছে।বাজারে আসা ক্রেতারা জানান ,দ্রব্যমূল্যের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে গিয়েছে।জিনিসপত্রের দাম নিয়্নত্রণে আনতে  স্হানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন ক্রেতারা।তাছাড়া বাজারে কোন মূল্য তালিকা না থাকার কারনে ব্যবসায়ীরা বেশি দামে পন্য বিক্রি করছেন বলে অভিযোগ করেন ক্রেতারা।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

নাগরপুরে রমজানে বাজারে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধগতি,ক্রেতারা দিশেহারা

আপডেট সময় : ০৮:০৫:১৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০২৪
 আজিজুল হক বাবু নাগরপুর প্রতিনিধিঃ  রমজান মাস উপলক্ষে নাগরপুর উপজেলার  বাজারগুলিতে নিত্য প্রয়োজনীয় সকল ভোগ্য পন্যের দাম ব্যাপক পরিমানে বৃদ্ধি পেয়েছে।এতে করে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়েছে।   সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায় যে, রমজান মাসে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম স্বাভাবিকের তুলনায় কয়েকগুন বৃদ্ধি পেয়েছে। স্হানীয় ব্যবসায়ী হেলাল জানান,আজ বাজারে বেগুন কেজি ৭০ টাকা, আলু ২০ টাকা,পিয়াজ ৫০ টাকা,পটল ৫০ টাকা,লেবু হালি প্রতি ৩০ টাকা,ছোলা ৬০-৮০ টাকা,খেসারি ডাল ৬০ টাকা,খেজুর মান ভেদে ১০০-৯০০ টাকা,মালটা ১৬০ টাকা, আপেল ১৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে ।এছাড়া বিভিন্ন ধরনের মাছের দাম আগের তুলনায় কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে।গরুর মাংস ৪৫০ টাকা ,ব্রয়লার ১৩০-২০০ টাকা,খাসির মাংস ৭০০ টাকা দরে ‍বিক্রি হচ্ছে।বাজারে আসা ক্রেতারা জানান ,দ্রব্যমূল্যের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে গিয়েছে।জিনিসপত্রের দাম নিয়্নত্রণে আনতে  স্হানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন ক্রেতারা।তাছাড়া বাজারে কোন মূল্য তালিকা না থাকার কারনে ব্যবসায়ীরা বেশি দামে পন্য বিক্রি করছেন বলে অভিযোগ করেন ক্রেতারা।