ঢাকা ০২:২৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোহরাওয়ার্দীতে ১২ মার্চের সভার অনুমতি পায়নি বিএনপি

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:১৭:১৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ মার্চ ২০১৮ ১৮ বার পড়া হয়েছে

দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ডাকা ১২ মার্চের জনসভা করার অনুমতি পায়নি বিএনপি। ঢাকায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এই সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছিল দলটি।

আজ বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক যুবসমাবেশে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী এ তথ্য জানিয়েছেন।

১২ মার্চ বিএনপি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভার অনুমতি চেয়েছে উল্লেখ করে আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘এক সপ্তাহ হলেও এখনো অনুমতি মেলেনি। অথচ আজকে যারা জনসভা করছে, তারা ১০ দিন ধরে ঢাকায় মাইকিং করছে, রাস্তাঘাট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এবং যেদিকে চোখ যায় সেদিকেই ব্যানার-ফেসটুন। দুঃখ হয়, কারণ আমরা তো এগুলো কিছু চাচ্ছি না! আমরা শুধু চাচ্ছি একটা সভায় অনুমতি। যেটা আমার সাংবিধানিক, গণতান্ত্রিক, রাজনৈতিক ও নাগরিক অধিকার। সেই অধিকার থেকে আজকে বিএনপি বঞ্চিত হয়েছে। কেন একটি দলকে তার রাজনৈতিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে?’

আমীর খসরু বলেন, ‘আমরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি করব। ইতিমধ্যে বিএনপি যে কর্মসূচিগুলো পালন করছে, এর চেয়ে শান্তিপূর্ণ তো আর কোনো কর্মসূচি নেই।’

আমীর খসরু বলেনর  আওয়ামী লীগ একটার পর একটা জনসভা করে যাচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সারা দেশ চষে বেড়াচ্ছেন। ভোট চাচ্ছেন। বিশাল জনসভার আয়োজন করছেন। কেবল ভোটই চাচ্ছেন না; জনগণকে ডেকে শপথও করাচ্ছেন।’

আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীরা, সরকারি কর্মকর্তা ও সরকারের সঙ্গে যাঁরা সম্পৃক্ত, তাঁরাও জনসভায় আসছেন। এতে আমাদের কোনো সমস্যা নেই। কারণ, আমরা স্বাধীন ও গণতান্ত্রিক দেশ চাই।’

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

সোহরাওয়ার্দীতে ১২ মার্চের সভার অনুমতি পায়নি বিএনপি

আপডেট সময় : ১২:১৭:১৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ৭ মার্চ ২০১৮

দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ডাকা ১২ মার্চের জনসভা করার অনুমতি পায়নি বিএনপি। ঢাকায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এই সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছিল দলটি।

আজ বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক যুবসমাবেশে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী এ তথ্য জানিয়েছেন।

১২ মার্চ বিএনপি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভার অনুমতি চেয়েছে উল্লেখ করে আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘এক সপ্তাহ হলেও এখনো অনুমতি মেলেনি। অথচ আজকে যারা জনসভা করছে, তারা ১০ দিন ধরে ঢাকায় মাইকিং করছে, রাস্তাঘাট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এবং যেদিকে চোখ যায় সেদিকেই ব্যানার-ফেসটুন। দুঃখ হয়, কারণ আমরা তো এগুলো কিছু চাচ্ছি না! আমরা শুধু চাচ্ছি একটা সভায় অনুমতি। যেটা আমার সাংবিধানিক, গণতান্ত্রিক, রাজনৈতিক ও নাগরিক অধিকার। সেই অধিকার থেকে আজকে বিএনপি বঞ্চিত হয়েছে। কেন একটি দলকে তার রাজনৈতিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে?’

আমীর খসরু বলেন, ‘আমরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি করব। ইতিমধ্যে বিএনপি যে কর্মসূচিগুলো পালন করছে, এর চেয়ে শান্তিপূর্ণ তো আর কোনো কর্মসূচি নেই।’

আমীর খসরু বলেনর  আওয়ামী লীগ একটার পর একটা জনসভা করে যাচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সারা দেশ চষে বেড়াচ্ছেন। ভোট চাচ্ছেন। বিশাল জনসভার আয়োজন করছেন। কেবল ভোটই চাচ্ছেন না; জনগণকে ডেকে শপথও করাচ্ছেন।’

আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীরা, সরকারি কর্মকর্তা ও সরকারের সঙ্গে যাঁরা সম্পৃক্ত, তাঁরাও জনসভায় আসছেন। এতে আমাদের কোনো সমস্যা নেই। কারণ, আমরা স্বাধীন ও গণতান্ত্রিক দেশ চাই।’