ঢাকা ০৮:১৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মির্জাপুরের সময়ের কথা এনজিওর মালিক গ্রাহকের লক্ষ লক্ষ টাকা নিয়ে পলাতক

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:১৩:১২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪ ৩০ বার পড়া হয়েছে

সোনালী বাংলাদেশ নিউজ ডেস্ক: টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের সময়ের কথা নামক এনজিও থেকে গ্রাহকের লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে দুই প্রতারক। এপ্রিল( ১৯)  শুক্রবার সকাল ৮ ঘটিকার সময় এনজির গ্রাহকগন টাকার দাবীতে সুধীর ও পিন্টুর বাড়িতে ঘন্টা ব্যাপি অনশন করেছে। প্রতারক আত্মসাতকারীগন উপজেলার মির্জাপুর পৌরসভার মৃত: ভানু ঘোষের ছেলে সুধীর চন্দ্র ঘোষ (শাওন ঘোষ) আন্ধরা (বড় ঘোষপাড়া) এবং মৃত: প্রান গোপাল দে এর ছেলে পিন্টু দে, আন্ধরা এলাকার বলে জানা গেছে।
সুধীর ও পিন্টু বিভিন্ন গ্রাহকের নিকট হতে লাভ দেওয়ার কথা বলে প্রায় আনুমানিক ৪-৫ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়ে গেছে বিষয়টি নিশ্চিত করেন সময়ের কথা এনজিওর শেয়ার হোল্ডার মন্টু সরকার, বিদ্যুৎ সাহা, সমীর সরকার, গৌতম দত্ত।
গ্রাহকরা বলেন, আমরা আমাদের টাকার বিষয়ে সুধীরের মা, স্ত্রী ও বড়ভাই সুদেবকে জানাই। তারা বলেন ১০-১২ দিনের মধ্যে সুধীর বাড়ি আসবে। তারপর সবাইকে নিয়ে সালিশের মাধ্যমে সবার টাকা ফেরৎ দিব। সুধীরের মা,স্ত্রী ও বড়ভাই ও তার শলিকা সালিশের কথা বলে সুধীরের বিল্ডিং থেকে মালামাল পাচার করতেছে। লোক মারফতে বিষয়টি জানতে পেরে আমরা আমাদের টাকার দাবীতে সুধীর ও পিন্টুর বাড়িতে অনশন করতেছি। আমাদের দাবী সুধীরে টাকা আত্মসাতের সাথে তার মা, বড় ভাই, স্ত্রী ও শালিকা জড়িত রয়েছে। অপর দিকে পিন্টু দে সময়ের কথা গোড়াই শাখার পরিচালক ও ম্যানেজারের দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় ভুয়া লোন দেখিয়ে প্রায় কোটি আত্মসাত করেছে প্রমানিত হয়। বিষয়টি গন্যম্যান্য লোকজনের উপস্থিতিতে গোড়াই শাখার সকল গ্রাহকদের টাকা পরিশোধ করবে অঙ্গীকারে ৩০০ টাকার নন জুডিশিয়াল স্টাম্পে সাক্ষীগনের উপস্থিতিতে স্বাক্ষর করেন।

জানা যায়, সাক্ষর করার কয়েকদিন পিন্টু দে তার স্ত্রী কলির নামে তার স্থাবর অস্থাবর পাওয়ার নামা করে বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছে। আমাদের টাকা উদ্ধারের জন্য প্রধান মন্ত্রী, পুলিশ, উপজেলা প্রশা সন সহ সকল আইন বিভাগের নিকট সুষ্ঠ ও ন্যায় বিচার দাবী জানাচ্ছি।
সময়ের কথা এনজিওর শেয়ার হোল্ডার মন্টু সরকার বলেন, মির্জাপুর শাখার টাকা পিন্টু ও জাহাঙ্গীর কেউ নেয়নি এই টাকাগুলি সুধীর একাই আত্মসাত করেছে।
ভাওড়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের মো. ময়নাল হক বলেন, পিন্টু স্ত্রী কলি তার স্বামীর এনজিওর টাকা পরিশোধ করবে বলে গ্রাহকের নিকট থেকে সঞ্চয় বইয়ের ফটোকফি জমা দিতে বলে। আমি গ্রাহকের সঞ্চয় বইয়ের ফটোকফি সংগ্রহ করে কলি আপার নিকট গেলে সে টাকা দিতে অস্বীকার করে।
পৌর কাউন্সিলর মো. সুমন হক বলেন, আমার ওয়ার্ডের কয়েকজন গ্রাহকের টাকার বিষয়ে কথা বলতে গেলে। কলি আপা বিভিন্ন ধরনের হমকি দেয়। বলে কোন কথা বললে আমি নারী তোমাদের বিরোদ্ধে অন্য বিষয়ে মামলা দেব ও ট্রিপুল নাইনে(৯৯৯) কল দেব।
পৌর কাউন্সিলর মো.শামীম খান ও বহুরিয়া ইউনিয়নের মেম্বার গোপাল বলেন, আমরা জানতে পেরেছি, এই এনজিওর টাকা সুধীর ও পিন্টু আত্মসাত করে পালিয়েছে। এদেরকে অবিলম্বে গ্রেফতার করে জনগনের টাকা উদ্ধার করার জন্য এমপি, প্রসাশন ও পুলিশসহ সকল বিচার বিভাগের নিকট সবিনয় অনুরোধ জানাচ্ছি।
সময়ের কথা এনজিওর নির্বাহী পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমরা মির্জাপুর থানাধীন মির্জাপুর সাহাপাড়া এলাকায় সময়ের কথা নামে একটি এনজিও পরিচালনা করিয়া আসতেছি। সুধীর চন্দ্র ঘোষ (শাওন ঘোষ), টাঙ্গাইল সময়ের কথা এনজিওর শেয়ার হোল্ডার, ম্যানেজার ও কোষাদক্ষ হিসেব দায়ীত্ব পালনরত কালীন সময়ে এনজিওর হিসাবে ত্রæটি পাওয়া গেলে, আম ২৮ ফ্রেব্রুয়ারি সময়ের কথা এনজিও এর মির্জাপুর প্রধান শাখার ম্যানেজার বরাবর হিসাব চেয়ে একটি নোটিশ প্রদান করি। নোটিশ পাওয়ার পর সুধীর কোন প্রকার হিসাব না দিয়ে বাড়ি থেকে আত্মগোপন করে। সুধীরের মা, বড় ভাই সুদেব ও স্ত্রীর সাথে ৩ মার্চ যোগাযোগে বলেন,আমি ১০-১২ দিনের মধ্যে সুধীরকে বাড়ি নিয়ে এসে সবাইকে নিয়ে একটি সালিশ বসব। এবং পিন্টু দে এনজিওর প্রয়েজনীয় কাগজপত্র লকারে বন্ধ করে এবং গোড়াই শাখার টাকা পরিশোধ করার কথা বলে পালিয়েছে। এ বিষয়ে মির্জাপুর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছি।
এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানার সেকেন্ড অফিসার এস আই করিম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করব।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

মির্জাপুরের সময়ের কথা এনজিওর মালিক গ্রাহকের লক্ষ লক্ষ টাকা নিয়ে পলাতক

আপডেট সময় : ০৪:১৩:১২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪

সোনালী বাংলাদেশ নিউজ ডেস্ক: টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের সময়ের কথা নামক এনজিও থেকে গ্রাহকের লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে দুই প্রতারক। এপ্রিল( ১৯)  শুক্রবার সকাল ৮ ঘটিকার সময় এনজির গ্রাহকগন টাকার দাবীতে সুধীর ও পিন্টুর বাড়িতে ঘন্টা ব্যাপি অনশন করেছে। প্রতারক আত্মসাতকারীগন উপজেলার মির্জাপুর পৌরসভার মৃত: ভানু ঘোষের ছেলে সুধীর চন্দ্র ঘোষ (শাওন ঘোষ) আন্ধরা (বড় ঘোষপাড়া) এবং মৃত: প্রান গোপাল দে এর ছেলে পিন্টু দে, আন্ধরা এলাকার বলে জানা গেছে।
সুধীর ও পিন্টু বিভিন্ন গ্রাহকের নিকট হতে লাভ দেওয়ার কথা বলে প্রায় আনুমানিক ৪-৫ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়ে গেছে বিষয়টি নিশ্চিত করেন সময়ের কথা এনজিওর শেয়ার হোল্ডার মন্টু সরকার, বিদ্যুৎ সাহা, সমীর সরকার, গৌতম দত্ত।
গ্রাহকরা বলেন, আমরা আমাদের টাকার বিষয়ে সুধীরের মা, স্ত্রী ও বড়ভাই সুদেবকে জানাই। তারা বলেন ১০-১২ দিনের মধ্যে সুধীর বাড়ি আসবে। তারপর সবাইকে নিয়ে সালিশের মাধ্যমে সবার টাকা ফেরৎ দিব। সুধীরের মা,স্ত্রী ও বড়ভাই ও তার শলিকা সালিশের কথা বলে সুধীরের বিল্ডিং থেকে মালামাল পাচার করতেছে। লোক মারফতে বিষয়টি জানতে পেরে আমরা আমাদের টাকার দাবীতে সুধীর ও পিন্টুর বাড়িতে অনশন করতেছি। আমাদের দাবী সুধীরে টাকা আত্মসাতের সাথে তার মা, বড় ভাই, স্ত্রী ও শালিকা জড়িত রয়েছে। অপর দিকে পিন্টু দে সময়ের কথা গোড়াই শাখার পরিচালক ও ম্যানেজারের দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় ভুয়া লোন দেখিয়ে প্রায় কোটি আত্মসাত করেছে প্রমানিত হয়। বিষয়টি গন্যম্যান্য লোকজনের উপস্থিতিতে গোড়াই শাখার সকল গ্রাহকদের টাকা পরিশোধ করবে অঙ্গীকারে ৩০০ টাকার নন জুডিশিয়াল স্টাম্পে সাক্ষীগনের উপস্থিতিতে স্বাক্ষর করেন।

জানা যায়, সাক্ষর করার কয়েকদিন পিন্টু দে তার স্ত্রী কলির নামে তার স্থাবর অস্থাবর পাওয়ার নামা করে বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছে। আমাদের টাকা উদ্ধারের জন্য প্রধান মন্ত্রী, পুলিশ, উপজেলা প্রশা সন সহ সকল আইন বিভাগের নিকট সুষ্ঠ ও ন্যায় বিচার দাবী জানাচ্ছি।
সময়ের কথা এনজিওর শেয়ার হোল্ডার মন্টু সরকার বলেন, মির্জাপুর শাখার টাকা পিন্টু ও জাহাঙ্গীর কেউ নেয়নি এই টাকাগুলি সুধীর একাই আত্মসাত করেছে।
ভাওড়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের মো. ময়নাল হক বলেন, পিন্টু স্ত্রী কলি তার স্বামীর এনজিওর টাকা পরিশোধ করবে বলে গ্রাহকের নিকট থেকে সঞ্চয় বইয়ের ফটোকফি জমা দিতে বলে। আমি গ্রাহকের সঞ্চয় বইয়ের ফটোকফি সংগ্রহ করে কলি আপার নিকট গেলে সে টাকা দিতে অস্বীকার করে।
পৌর কাউন্সিলর মো. সুমন হক বলেন, আমার ওয়ার্ডের কয়েকজন গ্রাহকের টাকার বিষয়ে কথা বলতে গেলে। কলি আপা বিভিন্ন ধরনের হমকি দেয়। বলে কোন কথা বললে আমি নারী তোমাদের বিরোদ্ধে অন্য বিষয়ে মামলা দেব ও ট্রিপুল নাইনে(৯৯৯) কল দেব।
পৌর কাউন্সিলর মো.শামীম খান ও বহুরিয়া ইউনিয়নের মেম্বার গোপাল বলেন, আমরা জানতে পেরেছি, এই এনজিওর টাকা সুধীর ও পিন্টু আত্মসাত করে পালিয়েছে। এদেরকে অবিলম্বে গ্রেফতার করে জনগনের টাকা উদ্ধার করার জন্য এমপি, প্রসাশন ও পুলিশসহ সকল বিচার বিভাগের নিকট সবিনয় অনুরোধ জানাচ্ছি।
সময়ের কথা এনজিওর নির্বাহী পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমরা মির্জাপুর থানাধীন মির্জাপুর সাহাপাড়া এলাকায় সময়ের কথা নামে একটি এনজিও পরিচালনা করিয়া আসতেছি। সুধীর চন্দ্র ঘোষ (শাওন ঘোষ), টাঙ্গাইল সময়ের কথা এনজিওর শেয়ার হোল্ডার, ম্যানেজার ও কোষাদক্ষ হিসেব দায়ীত্ব পালনরত কালীন সময়ে এনজিওর হিসাবে ত্রæটি পাওয়া গেলে, আম ২৮ ফ্রেব্রুয়ারি সময়ের কথা এনজিও এর মির্জাপুর প্রধান শাখার ম্যানেজার বরাবর হিসাব চেয়ে একটি নোটিশ প্রদান করি। নোটিশ পাওয়ার পর সুধীর কোন প্রকার হিসাব না দিয়ে বাড়ি থেকে আত্মগোপন করে। সুধীরের মা, বড় ভাই সুদেব ও স্ত্রীর সাথে ৩ মার্চ যোগাযোগে বলেন,আমি ১০-১২ দিনের মধ্যে সুধীরকে বাড়ি নিয়ে এসে সবাইকে নিয়ে একটি সালিশ বসব। এবং পিন্টু দে এনজিওর প্রয়েজনীয় কাগজপত্র লকারে বন্ধ করে এবং গোড়াই শাখার টাকা পরিশোধ করার কথা বলে পালিয়েছে। এ বিষয়ে মির্জাপুর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছি।
এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানার সেকেন্ড অফিসার এস আই করিম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করব।