ঢাকা ০৯:৩১ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৭ জুলাই ২০২৪, ২৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টাঙ্গাইলে জমি ব্যবসায়ীর টাকা ছিনতাই ছেলের উপর হামলার অভিযোগ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:১৪:৪৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ২৭ বার পড়া হয়েছে

সোনালী বাংলদেশ নিউজ ডেস্ক : টাঙ্গাইল সদর উপজেলার সিলিমপুর ইউনিয়নের মো:নাজিম উদ্দিনের ছেলে মো:রাজিব (২৫)এর উপর সন্ত্রাসীরা হামলা করেছে এবং তার কাছ থেকে বিশ লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ স্বজনদের। সোমবার (১৫এপ্রিল) বিকেলে সুবর্ণতলী গ্রামের ৭নং ওয়ার্ডে এ ঘটনাটি ঘটে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়- দেলদুয়ার উপজেলার দেউলী ইউনিয়নের মো:বাহেজ আলীর মেয়ে সীমা আক্তার(১৮) এর সাথে দীর্ঘদিন যাবত সিলিমপুর ইউনিয়নের সবর্ণতলী গ্রামের মো:গোলাম মোস্তফার ছেলে মো:কাউসার (২২) এর সাথে প্রেমের সম্পর্ক চলছিলো। রাজিব সম্পর্কে মেয়েটির চাছতো খালাতো ভাই হয়। তার বাবা-মা পরিবার সহ গাজীপুরের কুনাবাড়ি থাকের। দেশের বাড়ী টাঙ্গাইল সিলিমপুর ইউনিয়নের সুবর্ণতলী গ্রামে ঈদ করতে গ্রামের বাড়ি সুবর্ণতলী আসেন রাজিব। পরে তিনি যানতে পাড়েন তারই গ্রামের ছেলে মো:কাউসার তার চাছতো খালাতো বোনের সাথে সম্পর্ক করেছে কিন্তু বিয়ে করতে অসম্মত প্রকাশ করছেন বলে রাজিব প্রতিবাদ করায় সন্ত্রাসী দিয়ে হামলা শিকার হয়েছেন।
এ ঘটনায় বিচার চেয়ে রাজিবের বাবা মো:নাজিম উদ্দিন টাঙ্গাইল সদর থানা পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগের ভিত্তিতে টাঙ্গাইল সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তবে ঘটনার সঙ্গে জড়িত কাউকে আটক করতে পরেননি পুলিশ।
থানায় অভিযোগ সূত্রে জানা যায়-মো:ইব্রাহিম (৩০),মো:কাউসার (২৩)সহ বেশ কয়েক জনের নামে থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। এবং অভিযোগে বলা হয় পরিকল্পিত ভাবে চাইনীজ কুড়াল,রাম দা,লাঠি,লোহার রড ইত্যাদি দেশীয় অস্ত্র নিয়ে রাজীবকে হত্যার করার অসৎ উদ্দেশ্যে মাথা লক্ষ্য করিয়া কোপ মারিলে রাজিব মাঁটিতে পড়ে যায়। পরে চিৎকার চেঁচামেচিতে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে তারা পালিয়ে যায়।
এ বিষয়ে স্থানীরা জানান-সীমা ও কাউসার এর দুই পরিবারের গার্জেন নিয়ে এলাকার ময় মাতাব্বররা বিচারে বসে ছিলো। কী ভাবে তাদের বিবাহ টা মিমাংসা করা যায়। মিমাংসা টা প্রায় শেষের দিকে ঠিক সেই সময় চিৎকার চেঁচামেচিতে আমরা এগিয়ে গিয়ে দেখি রাজিব এর উপর হামলা শরীরে রক্ত নিয়ে মাটিতে পরে আছে। পরে আমরা ধরাধরি করে সিএনজি করে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে পাঠাই।
থানার সেকেন্ড অফিসার মো: ইমানুর রহমান বলেন-পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ছিলো। তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

টাঙ্গাইলে জমি ব্যবসায়ীর টাকা ছিনতাই ছেলের উপর হামলার অভিযোগ

আপডেট সময় : ১২:১৪:৪৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

সোনালী বাংলদেশ নিউজ ডেস্ক : টাঙ্গাইল সদর উপজেলার সিলিমপুর ইউনিয়নের মো:নাজিম উদ্দিনের ছেলে মো:রাজিব (২৫)এর উপর সন্ত্রাসীরা হামলা করেছে এবং তার কাছ থেকে বিশ লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ স্বজনদের। সোমবার (১৫এপ্রিল) বিকেলে সুবর্ণতলী গ্রামের ৭নং ওয়ার্ডে এ ঘটনাটি ঘটে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়- দেলদুয়ার উপজেলার দেউলী ইউনিয়নের মো:বাহেজ আলীর মেয়ে সীমা আক্তার(১৮) এর সাথে দীর্ঘদিন যাবত সিলিমপুর ইউনিয়নের সবর্ণতলী গ্রামের মো:গোলাম মোস্তফার ছেলে মো:কাউসার (২২) এর সাথে প্রেমের সম্পর্ক চলছিলো। রাজিব সম্পর্কে মেয়েটির চাছতো খালাতো ভাই হয়। তার বাবা-মা পরিবার সহ গাজীপুরের কুনাবাড়ি থাকের। দেশের বাড়ী টাঙ্গাইল সিলিমপুর ইউনিয়নের সুবর্ণতলী গ্রামে ঈদ করতে গ্রামের বাড়ি সুবর্ণতলী আসেন রাজিব। পরে তিনি যানতে পাড়েন তারই গ্রামের ছেলে মো:কাউসার তার চাছতো খালাতো বোনের সাথে সম্পর্ক করেছে কিন্তু বিয়ে করতে অসম্মত প্রকাশ করছেন বলে রাজিব প্রতিবাদ করায় সন্ত্রাসী দিয়ে হামলা শিকার হয়েছেন।
এ ঘটনায় বিচার চেয়ে রাজিবের বাবা মো:নাজিম উদ্দিন টাঙ্গাইল সদর থানা পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগের ভিত্তিতে টাঙ্গাইল সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তবে ঘটনার সঙ্গে জড়িত কাউকে আটক করতে পরেননি পুলিশ।
থানায় অভিযোগ সূত্রে জানা যায়-মো:ইব্রাহিম (৩০),মো:কাউসার (২৩)সহ বেশ কয়েক জনের নামে থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। এবং অভিযোগে বলা হয় পরিকল্পিত ভাবে চাইনীজ কুড়াল,রাম দা,লাঠি,লোহার রড ইত্যাদি দেশীয় অস্ত্র নিয়ে রাজীবকে হত্যার করার অসৎ উদ্দেশ্যে মাথা লক্ষ্য করিয়া কোপ মারিলে রাজিব মাঁটিতে পড়ে যায়। পরে চিৎকার চেঁচামেচিতে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে তারা পালিয়ে যায়।
এ বিষয়ে স্থানীরা জানান-সীমা ও কাউসার এর দুই পরিবারের গার্জেন নিয়ে এলাকার ময় মাতাব্বররা বিচারে বসে ছিলো। কী ভাবে তাদের বিবাহ টা মিমাংসা করা যায়। মিমাংসা টা প্রায় শেষের দিকে ঠিক সেই সময় চিৎকার চেঁচামেচিতে আমরা এগিয়ে গিয়ে দেখি রাজিব এর উপর হামলা শরীরে রক্ত নিয়ে মাটিতে পরে আছে। পরে আমরা ধরাধরি করে সিএনজি করে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে পাঠাই।
থানার সেকেন্ড অফিসার মো: ইমানুর রহমান বলেন-পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ছিলো। তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।