ঢাকা ১২:২০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টাঙ্গাইলের সখিপুরে এক মেধাবী ছাত্রীর জীবন অবসান

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:৪৫:৩৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ মার্চ ২০১৮ ১৬ বার পড়া হয়েছে

 

টাঙ্গাইলের সখিপুরে ডাক্তারের ভুল অপারেশনের কারণে এক মেধাবী ছাত্রী হ্যাপী আক্তারের জীবন অবসানের অভিযোগ পাওয়া গেছে। হ্যাপী এ বছর সখিপুর আবাসিক মহিলা অনার্স কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এইচএসসি পাশ করেছে।

হ্যাপীর পরিবারের লোকজন জানান, হ্যাপীর পিতা আ.হান্নান সখিপুর সিএনজি স্টেশনে চায়ের দোকান করে অতি কষ্টে মেয়েকে পড়াশোনা করাচ্ছিল। পেটের ব্যথার কারনে হ্যাপীকে নিয়ে গত ৬ মার্চ লাইফ কেয়ার ক্লিনিকে নিয়ে গেলে ডা. আব্দুস সাত্তার অ্যাপিন্ডিসাইট ধারণা করে অপারেশন করেন। এরপরেও পেটের ব্যথা ভালো না হলে হ্যাপীকে নিয়ে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ, ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় ডাক্তারের নিকট দৌড়াদৌড়ি করার পর পিজি হাসপাতালের ডা. অধ্যাপক তানভীর জালাল জানান, অ্যাপিন্ডিসাইট এর অপারেশন না করলেও চলতো গ্যাস্ট্রিকের কারনে পেট ব্যথা হয়েছে। অপারেশনের ত্রুটি ও গ্যাসের কারনে পেটে পিক জমেছে। দ্রুত অপারেশন করতে হবে। অপারেশন করার পূর্বেই গতকাল সোমবার ভোর পৌনে পাঁচটার দিকে হ্যাপী আক্তার মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

এ বিষয়ে ডা. আব্দুস সাত্তারের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। হ্যাপীর পরিবারের লোকজন ডা. আব্দুস সাত্তারের বিচার প্রার্থনা করেছেন।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

টাঙ্গাইলের সখিপুরে এক মেধাবী ছাত্রীর জীবন অবসান

আপডেট সময় : ০৯:৪৫:৩৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ মার্চ ২০১৮

 

টাঙ্গাইলের সখিপুরে ডাক্তারের ভুল অপারেশনের কারণে এক মেধাবী ছাত্রী হ্যাপী আক্তারের জীবন অবসানের অভিযোগ পাওয়া গেছে। হ্যাপী এ বছর সখিপুর আবাসিক মহিলা অনার্স কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এইচএসসি পাশ করেছে।

হ্যাপীর পরিবারের লোকজন জানান, হ্যাপীর পিতা আ.হান্নান সখিপুর সিএনজি স্টেশনে চায়ের দোকান করে অতি কষ্টে মেয়েকে পড়াশোনা করাচ্ছিল। পেটের ব্যথার কারনে হ্যাপীকে নিয়ে গত ৬ মার্চ লাইফ কেয়ার ক্লিনিকে নিয়ে গেলে ডা. আব্দুস সাত্তার অ্যাপিন্ডিসাইট ধারণা করে অপারেশন করেন। এরপরেও পেটের ব্যথা ভালো না হলে হ্যাপীকে নিয়ে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ, ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় ডাক্তারের নিকট দৌড়াদৌড়ি করার পর পিজি হাসপাতালের ডা. অধ্যাপক তানভীর জালাল জানান, অ্যাপিন্ডিসাইট এর অপারেশন না করলেও চলতো গ্যাস্ট্রিকের কারনে পেট ব্যথা হয়েছে। অপারেশনের ত্রুটি ও গ্যাসের কারনে পেটে পিক জমেছে। দ্রুত অপারেশন করতে হবে। অপারেশন করার পূর্বেই গতকাল সোমবার ভোর পৌনে পাঁচটার দিকে হ্যাপী আক্তার মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

এ বিষয়ে ডা. আব্দুস সাত্তারের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। হ্যাপীর পরিবারের লোকজন ডা. আব্দুস সাত্তারের বিচার প্রার্থনা করেছেন।