ঢাকা ০৪:১১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টাঙ্গাইলের বাসাইলে ব্যবসায়ী হত্যার চার মাস পর দুই আসামী গ্রেফতার

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:০৩:৫২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২১ মে ২০১৮ ১৯ বার পড়া হয়েছে

টাঙ্গাইলের বাসাইলে শামছুজ্জামান পটল (৫০) নামের এক মাটি ব্যবসায়ী হত্যা মামলায় দুইজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার (২০ মে) সকালে ঢাকার দোহার থেকে উপজেলার কাঞ্চনপুর পশ্চিম পাড়ার ইয়াছিন আলী খানের ছেলে শিশির খান (২০) কে গ্রেফতার করা হয়। এর পর তার দেয়া তথ্য মতে একই এলাকার আব্দুল হকের ছেলে যুবরাজকে গ্রেফতার করা হয়।

জানা যায়, গত ২০ ফেব্রুয়ারি উপজেলার কাঞ্চনপুর পশ্চিমপাড়া এলাকার একটি পরিত্যক্ত বাড়ির টয়লেটের সেপটিক ট্যাঙ্কি থেকে শামছুজ্জামান পটলের বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত শামছুজ্জামান ওই এলাকার খোরশেদ খানের ছেলে।

নিহতের পরিবার জানান, গত ১৫ ফেব্রুয়ারি রাতে শামছুজ্জামান চাচাতো ভাই শিশির খানের সাথে তার ঘরে ঘুমাতে যায়। এরপর সকালে তাদের দু’জনকে পাওয়া যাচ্ছিল না। দুইদিন পর শিশিরের খোঁজ পাওয়া গেলেও শামছুজ্জামানের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। এমতাবস্থায় গত ১৯ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় বাসাইল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। এ ঘটনায় শিশির গা ঢাকা দিয়েছিলেন। লাশ উদ্ধারের পর নিহতের স্ত্রী বাদি হয়ে মামলা দায়ের করে।

বাসাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আনিচুর রহমান বলেন, এ ঘটনার পরই আসামীরা পলাতক ছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিকে প্রথমে শিশিরকে গ্রেফতার করা হয়। তার দেয়া তথ্য মতে আরেকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

টাঙ্গাইলের বাসাইলে ব্যবসায়ী হত্যার চার মাস পর দুই আসামী গ্রেফতার

আপডেট সময় : ১১:০৩:৫২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২১ মে ২০১৮

টাঙ্গাইলের বাসাইলে শামছুজ্জামান পটল (৫০) নামের এক মাটি ব্যবসায়ী হত্যা মামলায় দুইজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার (২০ মে) সকালে ঢাকার দোহার থেকে উপজেলার কাঞ্চনপুর পশ্চিম পাড়ার ইয়াছিন আলী খানের ছেলে শিশির খান (২০) কে গ্রেফতার করা হয়। এর পর তার দেয়া তথ্য মতে একই এলাকার আব্দুল হকের ছেলে যুবরাজকে গ্রেফতার করা হয়।

জানা যায়, গত ২০ ফেব্রুয়ারি উপজেলার কাঞ্চনপুর পশ্চিমপাড়া এলাকার একটি পরিত্যক্ত বাড়ির টয়লেটের সেপটিক ট্যাঙ্কি থেকে শামছুজ্জামান পটলের বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত শামছুজ্জামান ওই এলাকার খোরশেদ খানের ছেলে।

নিহতের পরিবার জানান, গত ১৫ ফেব্রুয়ারি রাতে শামছুজ্জামান চাচাতো ভাই শিশির খানের সাথে তার ঘরে ঘুমাতে যায়। এরপর সকালে তাদের দু’জনকে পাওয়া যাচ্ছিল না। দুইদিন পর শিশিরের খোঁজ পাওয়া গেলেও শামছুজ্জামানের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। এমতাবস্থায় গত ১৯ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় বাসাইল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। এ ঘটনায় শিশির গা ঢাকা দিয়েছিলেন। লাশ উদ্ধারের পর নিহতের স্ত্রী বাদি হয়ে মামলা দায়ের করে।

বাসাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আনিচুর রহমান বলেন, এ ঘটনার পরই আসামীরা পলাতক ছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিকে প্রথমে শিশিরকে গ্রেফতার করা হয়। তার দেয়া তথ্য মতে আরেকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।