ঢাকা ০৩:১০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কালিহাতীর কলেজগুলোতে ভর্তিতে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:৪২:৪২ অপরাহ্ন, সোমবার, ৯ জুলাই ২০১৮ ১২ বার পড়া হয়েছে

সোহেল রানা, কালিহাতী প্রতিনিধি  : সরকারী নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে টাঙ্গাইলের কালিহাতীর কলেজগুলোতে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তিতে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হচ্ছে। এতে গরিব ছাত্র-ছাত্রীদের পক্ষে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি হওয়া সম্ভব হচ্ছে না। ফলে তাদের শিক্ষাজীবন অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কালিহাতী কলেজে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তিকৃত ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে ৩ হাজার ১১৫ টাকা মানবিক ও ব্যবসায়ী বিভাগে ২ হাজার ৯১৫ টাকা আদায় করা হচ্ছে। এলেঙ্গা লুৎফর রহমান মতিন মহিলা ডিগ্রি কলেজে ফরম ফি ৫০ টাকা, রেজিস্ট্রেশন ফি ১০০০ টাকা, উন্নয়ন ফি সহ সর্বমোট একজন ছাত্রী থেকে ভর্তি বাবদ ২ হাজার ৫০০ টাকা আদায় করা হচ্ছে। এলেঙ্গা সরকারী শামসুল হক ডিগ্রি কলেজে প্রতি জন ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে ২ হাজার ৫০০ টাকা। আউলিয়াবাদ আলাউদ্দিন সিদ্দিকী মহাবিদ্যালয়ে প্রতিজন ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে ২ হাজার ২০০ টাকা।
এব্যাপারে কালিহাতী কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রহিমের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, কলেজ কর্তৃপক্ষ নির্ধারিত একাদশ শ্রেণীতে ভর্তিকৃত ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে ৩ হাজার ১১৫ টাকা, মানবিক ও ব্যবসায়ী বিভাগে ২ হাজার ৯১৫ টাকা আদায় করা হচ্ছে। আমরা অতিরিক্ত কোন অর্থ আদায় করছি না।
এলেঙ্গা লুৎফর রহমান মতিন মহিলা ডিগ্রি কলেজে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোছা. মনিরা বেগমের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, কলেজ কর্তৃপক্ষ নির্ধারিত একজন ছাত্রী থেকে ভর্তি বাবদ ২ হাজার ৫০০ টাকা আদায় করা হচ্ছে।
এলেঙ্গা সরকারী শামসুল হক ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ আনোয়ারুল কবীর বলেন, সরকারী বিধি মোতাবেক একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি বাবদ আদায় করা হচ্ছে ২ হাজার ৫০০ টাকা। আমরা প্রতিটি কলেজের সাথে সমন্নয় করে এ সিন্ধান্ত নিয়েছি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষক বলেন, সরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছাড়াও বেসরকারী সকল শিক্ষকদের বেতন-ভাতার অংশ সরকার দেওয়ার পরও কিছু বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সারাদেশে অবৈধ ভাবে অর্থ আদায় করে ভাগ-ভাটোয়ারা করে নিচ্ছে। সরকারের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের এ ব্যাপারে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা উচিত।
এব্যাপারে কালিহাতী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রোকেয়া খাতুনের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের বিষয়ে আমার জানা নেই। তবে অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

কালিহাতীর কলেজগুলোতে ভর্তিতে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ

আপডেট সময় : ০৫:৪২:৪২ অপরাহ্ন, সোমবার, ৯ জুলাই ২০১৮

সোহেল রানা, কালিহাতী প্রতিনিধি  : সরকারী নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে টাঙ্গাইলের কালিহাতীর কলেজগুলোতে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তিতে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হচ্ছে। এতে গরিব ছাত্র-ছাত্রীদের পক্ষে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি হওয়া সম্ভব হচ্ছে না। ফলে তাদের শিক্ষাজীবন অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কালিহাতী কলেজে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তিকৃত ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে ৩ হাজার ১১৫ টাকা মানবিক ও ব্যবসায়ী বিভাগে ২ হাজার ৯১৫ টাকা আদায় করা হচ্ছে। এলেঙ্গা লুৎফর রহমান মতিন মহিলা ডিগ্রি কলেজে ফরম ফি ৫০ টাকা, রেজিস্ট্রেশন ফি ১০০০ টাকা, উন্নয়ন ফি সহ সর্বমোট একজন ছাত্রী থেকে ভর্তি বাবদ ২ হাজার ৫০০ টাকা আদায় করা হচ্ছে। এলেঙ্গা সরকারী শামসুল হক ডিগ্রি কলেজে প্রতি জন ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে ২ হাজার ৫০০ টাকা। আউলিয়াবাদ আলাউদ্দিন সিদ্দিকী মহাবিদ্যালয়ে প্রতিজন ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে ২ হাজার ২০০ টাকা।
এব্যাপারে কালিহাতী কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রহিমের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, কলেজ কর্তৃপক্ষ নির্ধারিত একাদশ শ্রেণীতে ভর্তিকৃত ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে ৩ হাজার ১১৫ টাকা, মানবিক ও ব্যবসায়ী বিভাগে ২ হাজার ৯১৫ টাকা আদায় করা হচ্ছে। আমরা অতিরিক্ত কোন অর্থ আদায় করছি না।
এলেঙ্গা লুৎফর রহমান মতিন মহিলা ডিগ্রি কলেজে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোছা. মনিরা বেগমের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, কলেজ কর্তৃপক্ষ নির্ধারিত একজন ছাত্রী থেকে ভর্তি বাবদ ২ হাজার ৫০০ টাকা আদায় করা হচ্ছে।
এলেঙ্গা সরকারী শামসুল হক ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ আনোয়ারুল কবীর বলেন, সরকারী বিধি মোতাবেক একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি বাবদ আদায় করা হচ্ছে ২ হাজার ৫০০ টাকা। আমরা প্রতিটি কলেজের সাথে সমন্নয় করে এ সিন্ধান্ত নিয়েছি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষক বলেন, সরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছাড়াও বেসরকারী সকল শিক্ষকদের বেতন-ভাতার অংশ সরকার দেওয়ার পরও কিছু বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সারাদেশে অবৈধ ভাবে অর্থ আদায় করে ভাগ-ভাটোয়ারা করে নিচ্ছে। সরকারের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের এ ব্যাপারে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা উচিত।
এব্যাপারে কালিহাতী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রোকেয়া খাতুনের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের বিষয়ে আমার জানা নেই। তবে অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।