বঙ্গবন্ধুসেতুর পূর্বপাড়ে ভারী ট্রাক লোড-আনলোডের কারণে গ্যাসপাইপ ফেঁটে বিস্ফোরণের আশঙ্কা

সোনালী বাংলাদেশ নিউজ
সম্পাদনাঃ ০১ এপ্রিল ২০২১ - ০৬:১৬:৪৩ পিএম

সোনালী বাংলাদেশ নিউজ ডেস্ক : বঙ্গবন্ধুসেতুর পূর্বপাড়ে থানার ঘাট নামে পরিচিত স্থানে ভারী ট্রাক লোড-আনলোডের কারণে গ্যাসপাইপ ফেঁটে বিস্ফোরণের আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে।

উত্তরাঞ্চলে সরবরাহের তিতাস গ্যাসের পাইপ লাইনের উপর দিয়ে ২৪ থেকে ৩২টন ওজনের ভারী ট্রাক যাতায়াতের কারণে এ আশঙ্কার সৃষ্টি হয়েছে।

জানাগেছে, দেশের উত্তরাঞ্চলে গ্যাস সরবরাহের নিমিত্তে বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্বপ্রান্তে কালিহাতী উপজেলার গোহালিয়াবাড়ী ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বিনোদনুহুরিয়া মৌজায় গ্যাসফিল্ড স্থাপন করা হয়েছে।

ওই ফিল্ডে গ্যাস সরবরাহের পাইপলাইনের দক্ষিণপাশে খোলা জায়গায় পাথর, সিমেন্ট, রড সহ বিভিন্ন অতিরিক্ত মালামাল বোঝাই ৬-১০চাকার ট্রাক লোড-আনলোডের জন্য আনা-নেওয়া করা হচ্ছে।

ওই গ্যাসপাইপের উপর দিয়ে প্রতিদিন ২৪ থেকে ৩২টন ওজনের মালামাল বোঝাই দেড় থেকে দুইশ’ ভারী ট্রাক যাতায়াত করে থাকে।

স্থানীয় গোহালিয়াবাড়ী ইউপি সদস্য আব্দুল হাই আকন্দের নেতৃত্বে জাতীয় স্থাপনার নিরাপত্তা বিঘ্নিত করে ওই লোড-আনলোড করা হচ্ছে। ফলে গ্যাসপাইপ লাইন ফেঁটে যে কোন সময় বিস্ফোরণের আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী।

বিনোদনুহুরিয়া গ্রামের হযরত সর্দার(৫৫), মোতালেব সরকার(৫০), মহর আলী(৫৭) ও আবু সাইদ(৩৫) সহ অনেকেই জানান, গ্যাসপাইপে ফাঁটলের আশঙ্কায় ইতোপূর্বে বাসেক’র অনুরোধে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একাধিকবার ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে থানার ঘাট নামে পরিচিত বালুঘাট বন্ধ করে দেওয়া হয়।

তারপরও রাতের আঁধারে বালু বোঝাই ট্রাক আনা-নেওয়া করায় জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে গ্যাসপাইপলাইনের স্থলে টিনের তৈরি বেড়া দিয়ে রাস্তা স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়। কে বা কারা সেই টিনের বেড়া রাতের আঁধারে ভেঙে ফেলে দিয়েছে।

গোহালিয়াবাড়ী ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. নজরুল ইসলাম জানান, বাসেক’র(বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ) বঙ্গবন্ধু সেতু সাইট অফিসের কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে জাতীয় স্থাপনার ঝুঁকির বিষয়ে জেনেও সম্পূর্ণ অবৈধভাবে গ্যাসপাইপলাইনের উপর দিয়ে ভারী ভারী ট্রাক আনা-নেওয়া করা হচ্ছে। এতে যে কোন সময় গ্যাসপাইপ ফেঁটে বিস্ফোরণের আশঙ্কা রয়েছে।

এ বিষয়ে গোহালিয়াবাড়ী ইউপি সদস্য আব্দুল হাই আকন্দ জানান, স্থানীয় এমপি হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারির সুপারিশে বাসেক সরেজমিন তদন্ত করে তাকে গ্যাসপাইপের উপর দিয়ে ট্রাক নিয়ে খোলা জায়গায় লোড-আনলোডের অনুমতি দিয়েছে।

লোড-আনলোড চালু হওয়ায় স্থানীয় কুলি-মজদুররা কিছু আয়-রোজগার করতে পারছে তিনি শুধু দেখভাল করছেন।

বাসেক’র বঙ্গবন্ধু সেতু সাইট অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসানুল কবির পাভেল জানান, বঙ্গবন্ধু সেতুর উপর দিয়ে ট্রাকসহ ১৬টন ওজনের বেশি বাহন চলাচল নিষিদ্ধ।

ভারী ওজনের ট্রাক লোড-আনলোডের জন্য কোন প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তিকে অনুমতি দেওয়া হয়নি। যারা ট্রাক লোড-আনলোডের কাজ করছে তাদের সাথে কোন যোগাযোগও নেই। এছাড়া গ্যাসফিল্ড বা পাইপলাইন দেখভালের দায়িত্ব তিতাসগ্যাস কর্তৃপক্ষের।

তিতাসগ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিষ্ট্রিবিউশন টাঙ্গাইলের ম্যানেজার আব্দুর রউফ জানান, গ্যাসপাইপলাইনের উপর দিয়ে ট্রাক যাতায়াত ইতোপূর্বে জেলা প্রশাসনের সহায়তায় বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল।

এখন আবার কে বা কারা ভারী ট্রাক আনা-নেওয়া করছে তা তারা জানেন না। তবে ওই স্থান দিয়ে ভারী ট্রাক আনা-নেওয়া করতে দেওয়ার কোন সুযোগ নেই। এ বিষয়ে তিনি দ্রুতই ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।



সর্বশেষ
জনপ্রিয় খবর
%d bloggers like this: