শিরোনাম
টাঙ্গাইলে লাইব্রেরিয়ান নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ Headline Bullet       টাঙ্গাইলে সাংবাদিকদের মাঝে অনুদানের চেক প্রদান Headline Bullet       টাঙ্গাইলে সদর থানা ও শহর বিএনপির আহবায়ক কমিটির আনন্দ Headline Bullet       শিহাব হত্যা মামলায় ৪ আসামির আত্মসমর্পণ, জামিন নামঞ্জুর Headline Bullet       বাসাইলে ৪টি ড্রেজার মেশিন ধ্বংস Headline Bullet       তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে টাঙ্গাইলে জাতীয় পার্টির বিক্ষোভ ও সমাবেশ Headline Bullet       চলন্ত বাসে ডাকাতি ও ধর্ষণে : মূল পরিকল্পনাকারীসহ ১০ ডাকাত গ্রেফতার Headline Bullet       সদরে দাইন্যা ইউনিয়নে পউপট’র উদ্যোগে বিনামূল্যে চারা গাছ বিতরণ Headline Bullet       টাঙ্গাইলে শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের জন্মাদিনে শ্রদ্ধা Headline Bullet       টাঙ্গাইলে পাশ থেকে অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার Headline Bullet      

ধনবাড়ীতে চলন্ত বাসে পোশাক শ্রমিককে গণধর্ষণ, চারজনের যাবজ্জীবন

সোনালী বাংলাদেশ নিউজ
সম্পাদনাঃ ২২ মে ২০১৯ - ০৬:০০:৪৭ পিএম

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে চলন্ত বাসে পোশাক শ্রমিককে গণধর্ষণ মামলায় চারজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে ছয় মাসের কারাদণ্ডা দেয়া হয়েছে। বুধবার দুপুরে টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এ রায় দেন।দন্ডপ্রাপ্তরা হলো গাড়ি চালক হাবিবুর রহমান (নয়ন) (২৮), হেলাপার মো. খালেক ভুট্টো (২৩) অপর আসামী আশরাফুল (২৬)। এ ঘটনায় কন্টাকটার রেজাউল করিম জুয়েল (৩৮) পলাতক রয়েছে। রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিশেষ পিপি নাসিমুল আক্তার নাসিম। তাকে সহায়তা করেন মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা টাঙ্গাইল জেলা শাখার সাধারন সম্পাদক এ্যাডভোকেট আতাউর রহমান আজাদ।

মামলার বিবরনে জানা যায়, ২০১৬ সালের ১ এপ্রিল কালিয়াকৈরের মৌচাকে কর্মরত এক গার্মেন্টস কর্মী টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী বাসস্ট্যান্ড থেকে ভোর পাঁচটার দিকে ‘বিনিময় পরিবহনের’ একটি বাসে কালিকৈরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়

এসময় বাসে যাত্রী না থাকার সুযোগে বাসটি কিছুদূর যাওয়ার পর কন্টাকটার বাসের জানালা দরজা বন্ধ করে দেয়। পরে গাড়ির চালক হাবিবুর রহমান নয়ন তাঁকে পিঁছনের ছিটে নিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষন করে। পালা ক্রমে বাসের কন্টাকটার ও হেলপার ধর্ষন করে। পরে বাসটি ঢাকা না গিয়ে টাঙ্গাইল ময়মনসিংহ রোডের একটি ফাঁকা জায়গায় ওই গৃহবধুকে নামিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে ওই গৃহবধু মধুপুর সাসস্ট্যান্ড এসে তাঁর স্বামীকে বিষয়টি জানালে স্বামী তাঁকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।

পরে পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত বাসের চালক, হেলপার ও সুপার ভাইজারকে ঐদিনই গ্রেপ্তার করে। গৃহবধু স্বামী বাদী হয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানায় ৯ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করে। পরে পুলিশ তদন্ত শেষে চার জনকে আসামী করে চার্জশিস্ট দিয়ে ছয়জনকে অব্যহতি প্রদান করে। গ্রেপ্তারকৃত তিন আসামী আদালতে স্বীকাররোক্তি জবানবন্দী প্রদান করেন। গৃহবধুকে আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দী প্রদান করা হয়। জবানবন্দীতে গৃহবধু আশরাফুল নামের আরো একজনের নাম উল্লেখ করে। এতে মোট আসামীর সংখ্যা দাড়ায় ১০ জন। এ মামলায় বাদীসহ ৯ জন আদালতে স্বাক্ষী প্রদান করে।

সর্বশেষ
জনপ্রিয় খবর
%d bloggers like this: