শিরোনাম

টাঙ্গাইল নাগরপুরে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষনের ঘটনায় আটক দুই

সোনালী বাংলাদেশ নিউজ
সম্পাদনাঃ ১৬ এপ্রিল ২০১৯ - ০৯:২১:৫১ পিএম


সোনালী বাংলাদেশ নিউজ ডেস্ক :
নাগরপুরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক তরুনীকে (১৬) ধর্ষনের ঘটনায় দুই যুবককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় জনতা।মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) সকালে অভিযুক্ত দুই আসামীকে জেল হাজতে ও ধর্ষিতা তরুনীকে জবানবন্দি এবং ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়।আটককৃতরা হলো, উপজেলার বেকড়া গ্রামের মৃত আব্দুর রউফের ছেলে ধর্ষক মোবারক হোসেন (২০) ও সাহায্যকারী চৌবাড়িয়াতে গ্রামের মৃত আব্দুল মিয়ার ছেলে রাজিব মিয়ার কালু (২২)।স্থানীযরা জানান, সোমবার (১৫ এপ্রিল) ভিকটিমের বাবা বিষয়টি এলাকাবাসীকে জানালে তারা আসামী মোবারক ও কালুকে ডেকে জিজ্ঞেস করলে তারা ধর্ষনের কথা স্বীকার করে।পরে এলাকাবাসী তাদের আটক করে থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ রাতেই তাদের গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে।পরে সোমবার (১৫ এপ্রিল) গভীর রাতে ধর্ষিতার বাবা ধর্ষনের অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের করেন।মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ওই তরুনীর সাথে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আসামী মোবারকের পরিচয় হয়ে বেশ কিছুদিন যাবৎ মন দেওয়া নেওয়া চলছিল। গত রবিবার (১৪ এপ্রিল) উপজেলার ভারড়া বাজারে অনুষ্ঠিত বৈশাখী মেলায় বেড়াতে আসলে ঐ তরুনীকে কৌশলে মোবারক তার বন্ধু কালুর বাড়ি চৌবাড়িয়াতে বেড়াতে নিয়ে যায়।এসময় কালু, মোবারক ও ওই তরুনীকে তার দোচালা ঘরের ভিতর রেখে বাইরে থেকে শিকল দিয়ে চলে যায়। পরে রাতে মোবারক তরুনীকে ফুসলিয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার ধর্ষন করে।পরদিন সোমবার (১৫ এপ্রিল) সকালে কালুর বাড়ি থেকে বেড়িয়ে তরুনীকে বিয়ে করবে বলে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে ঘোরাফেরা করতে থাকে। এক পর্যায়ে তরুনীকে উপজেলার শেখ শামসুল হক সেতুর উপর রেখে মোবারক ও কালু পালিয়ে যায়।সময় পেরিয়ে গেলেও তারা না আসায় ধর্ষনের শিকার তরুনী বিষয়টি মোবাইল ফোনে তার বড় বোনকে জানালে তারা সেতু এলাকা থেকে তরুনীকে উদ্ধার করে।পরে বিষয়টি কালুর বাড়িতে গিয়ে ভিকটিমের বাবা জানালে এলাকাবাসীর সহায়তায় মোবারক ও কালুকে আটক করে পুলিশে শোপর্দ করে।নাগরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলম চাঁদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) সকালে আসামীদেরকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরন করা হয়েছে।ওই তরুনীকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মূলত বিয়ের প্রলোভনে ওই তরুনীকে ধর্ষন করা হয়ে থাকতে পারে বলে তিনি জানান।

সর্বশেষ
জনপ্রিয় খবর
%d bloggers like this: